পল্লীমা সংসদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি

পল্লীমা সংসদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি

মুজিব বর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও পল্লীমা সংসদের ৫৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। পল্লীমা সংসদ এসব কর্মসূচি নেওয়ার কথা জানিয়েছে। বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন ১ ডিসেম্বর থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত এসব কর্মসূচির মধ্যে থাকছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, শীতবস্ত্র বিতরণ, স্মরণ অনুষ্ঠান, আলোচনা, দোয়া মাহফিলসহ নানা আয়োজন। দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে ১৮ দিনের কর্মসূচিই থাকছে স্বাধীনতার মাস ডিসেম্বরজুড়ে। পল্লীমা সংসদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি বিজ্ঞাপন পল্লীমা সংসদের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়,

১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ছয়টায় করোনাকালে গত হওয়া দেশের বিশিষ্টজন ও পল্লীমা সংসদের সদস্যদের স্মরণে ‘রাখিব স্মরণে’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদ্‌যাপন কর্মসূচি শুরু হবে। ২, ৩, ৬, ৭ ও ৮ ডিসেম্বর হবে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। ৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, ১০ ডিসেম্বর হবে পল্লীমা গ্রিনের উদ্যোগে পরিচ্ছন্নতা ও পরিবেশবিষয়ক কর্মসূচি, ১১ ডিসেম্বর হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আলোচনা, ১৪ ডিসেম্বর হবে রক্তদান কর্মসূচি, ১৬ ডিসেম্বর হবে আলোচনা সভা, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক আয়োজন, ৩১ ডিসেম্বর হবে শীতবস্ত্র বিতরণ। ১৫ জানুয়ারি শহীদ বাবুল একাডেমির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্‌যাপনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে পল্লীমা সংসদের নানা আয়োজন।

মুজিব বর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও পল্লীমা সংসদের ৫৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। পল্লীমা সংসদ এসব কর্মসূচি নেওয়ার কথা জানিয়েছে। বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন ১ ডিসেম্বর থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত এসব কর্মসূচির মধ্যে থাকছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, শীতবস্ত্র বিতরণ, স্মরণ অনুষ্ঠান, আলোচনা, দোয়া মাহফিলসহ নানা আয়োজন। দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে ১৮ দিনের কর্মসূচিই থাকছে স্বাধীনতার মাস ডিসেম্বরজুড়ে। পল্লীমা সংসদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি বিজ্ঞাপন পল্লীমা সংসদের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ছয়টায় করোনাকালে গত হওয়া দেশের বিশিষ্টজন ও পল্লীমা সংসদের সদস্যদের স্মরণে ‘রাখিব স্মরণে’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদ্‌যাপন কর্মসূচি শুরু হবে। ২, ৩, ৬, ৭ ও ৮ ডিসেম্বর হবে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী।

৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, ১০ ডিসেম্বর হবে পল্লীমা গ্রিনের উদ্যোগে পরিচ্ছন্নতা ও পরিবেশবিষয়ক কর্মসূচি, ১১ ডিসেম্বর হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আলোচনা, ১৪ ডিসেম্বর হবে রক্তদান কর্মসূচি, ১৬ ডিসেম্বর হবে আলোচনা সভা, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক আয়োজন, ৩১ ডিসেম্বর হবে শীতবস্ত্র বিতরণ। ১৫ জানুয়ারি শহীদ বাবুল একাডেমির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্‌যাপনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে পল্লীমা সংসদের নানা আয়োজন।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.