Home / অনান্য / মা-মে’য়ে দু’ইজনে’র স’ঙ্গেই অ’বৈ’ধ স’ম্প’র্ক কি’শোরে’র

মা-মে’য়ে দু’ইজনে’র স’ঙ্গেই অ’বৈ’ধ স’ম্প’র্ক কি’শোরে’র

মা ও মেয়ে, দুইজনের স’ঙ্গেই একস’ঙ্গে ‘স’ম্পর্ক’ ছিল আ’ট’ক প্রেমিক সৌরভের। মা ও মেয়ে দু’জনের স’ঙ্গেই ‘সে’ক্স চ্যাট’ করতো সৌরভ। লিভ-ইন স’ম্পর্কও ছিল।ভারতের গড়িয়াহাটে বৃ’দ্ধা কা’ণ্ডের ত’দন্তে সামনে আসলো চাঞ্চল্যকর তথ্য।

 

 

জানা গেছে, ফেসবুকে প্রথম গু’ড়িয়ার স’ঙ্গে যোগাযোগ হয় সৌরভের।আরও পড়ুন : পুকুর নেই ইউটিউব দেখে ঘরেই মাছ চাষ করে মাসে লাখ টাকা আয়। অতিমা’রীর তান্ডবে দেশের অর্থনীতি যখন তলানীতে এসে ঠেকেছে তখন,মাগু’র মাছ চাষ করে লাখ টাকা রোজগার করছেন জলপাইগু’ড়ি‌র ডে’ঙ্গু’‌য়াঝাড় চা-বাগানের এক মহিলা শ্রমিক। মোবাইলে

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় মাছ চাষের ভিডিওএবং প’দ্ধতি দেখে মাগু’র মাছ চাষ শুরু করেছিলেন কল্পনা রায় নামে ওই চা-শ্রমিক। স্বামী খগেন রায় গত দশ বছর আগে অসুস্থ হয়ে আচমকাই মা’রা যান। এই পরিস্থিতিতে একমাত্র ছেলেকে উচ্চ শিক্ষিত করার স্বপ্ন ভাঙতে বসেছিল কল্পনার। তবে হাল ছাড়েননি কখনও। রোজগার বাড়ানোর জন্য চা- বাগানে কাজ করার পাশাপাশি অন‍্য কিছু করতে চাইছিলেন তিনি। এর‌ই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় মাগু’র মাছ চাষের প’দ্ধতি র’প্ত করে বহরমপুরে যোগাযোগ করেন তিনি।

 

 

জানা গিয়েছে, তাঁরা‌ই সেখান থেকে পোনা মাছ পাঠিয়ে দেন জলপাইগু’ড়ি‌তে। ডে’ঙ্গু’‌য়াঝাড় চা-বাগানের টাটা লাইনের বাসিন্দা কল্পনা রায়জানান, প্রথমে তিন হাজার মাছ দিয়ে চাষ শুরু করেছিলেন তিনি। খরচ হয়েছিল আট’ হাজার টাকা। তিন মাস পর সেগু’লো বিক্রি করে সমস্ত খরচ বাদ দিয়ে তিরিশ হাজার টাকা‌র বেশি লাভ হয়েছিল। এখন তাঁর কাছে তিনটি চৌবাচ্চায় মোট পনেরো হাজার মাছ রয়েছে। বাড়ির উঠোনেজায়গা কম থাকায় নিজের রান্নাঘরে দুটো চৌবাচ্চা তৈরি করেছেন।

 

 

এদিন তিনি বলেন, “ছেলে এবার উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছে। মাছ চাষের রোজগারের এই অর্থ দিয়ে ছেলেকে উচ্চ শিক্ষিত করে তোলাই তাঁর প্রধান লক্ষ্য।” আরও পড়ুন=করো’না ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতির মাঝে অনলাইনে নয় বরং সরাসরি হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) স্নাতক প্রথমবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। এরই ধা’রাবাহিকতায় শিক্ষার্থীদের রেজাল্টের পর ভর্তির তারিখ জানানো হবে।তবে, ডিসেম্বরের দিকে পরীক্ষা ‘হতে পারে বলে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে।আজ ম’ঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির মিটিংয়ের পর এই সি’দ্ধান্ত জানানো হয়েছে। বর্তমানে ডিনস কমিটির এই সি’দ্ধান্ত অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলে যাব’ে।

 

 

সূত্র জানায়, করো’নার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় নিয়ে ভর্তি পরীক্ষা শিক্ষার্থীদের নিজস্ব বিভাগে নেওয়ার কথাও হয়েছে। অর্থাৎ যে শিক্ষার্থী যে বিভাগের, তারা সেই বিভাগে পরীক্ষা দেবে। এর ফলে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে ঢাকায় আসতে হবে না।বি’ষয়টিতে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, ‘আমর’া ভর্তি পরীক্ষা নেব। আমা’দের সকল অনুষদের ডিন এ বি’ষয়ে মতামত দিয়েছেন। প্যানডামিক সিচুয়েশন বিবেচনা করে রেজাল্টের পর ডিসেম্বরে আমর’া ভর্তি পরীক্ষা নেব।’

About admin

Check Also

বয়স কমাতে নিজের ছেলে কে ভাই বলে পরিচয় দেন শ্রাবন্তী

নিজে’র কাজ ও ব্য’ক্তি জীবন নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন টলিসু’ন্দরী শ্রাবন্তী।এরই মাঝে সামনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *