<
JOB

সরকারি প্রতিষ্ঠানেও ইন্টার্ন করা যাবে, গেজেট প্রকাশ

এখন থেকে সরকারি প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ বা শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার সুযোগ পারবেন শিক্ষার্থীরা। বর্তমানে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এ সুযোগ থাকলেও সেটি নীতিমালা অনুযায়ী হচ্ছে না, যার যার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হচ্ছে। এখন বেসরকারি খাতকেও একই নীতিমালার আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে গত ৩ ডিসেম্বর প্রকাশ করা ‘ইন্টার্নশিপ নীতিমালা-২০২৩’-এ এসব তথ্য দেওয়া হয়েছে

এতে বলা হয়, স্নাতক, স্নাতকোত্তর বা সমমানের ডিগ্রি অর্জনের ২ বছরের মধ্যে ইন্টার্নশিপের জন্য আবেদন করতে হবে। একজন প্রার্থী একবারই সরকারি অফিসে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ পাবেন। ইন্টার্নশিপের মেয়াদ হবে কমপক্ষে ৩ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৬ মাস পর্যন্ত।

এতে আরো বলা হয়, দেশের স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীদের ব্যবহারিক প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে যুগোপযোগী ও অভিজ্ঞ মানবসম্পদ সৃষ্টি, পাঠ্যপুস্তকের জ্ঞানের সঙ্গে কর্মক্ষেত্রের অভিজ্ঞতার সমন্বয় ঘটানোর সুযোগ রেখে ইন্টার্নশিপ নীতিমালার গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, নীতিমালা অবিলম্বে কার্যকর হবে। সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বা অন্য কোনো রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ইন্টার্নশিপ প্রদান করতে পারবে।

ইন্টার্নশিপের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হিসেবে নীতিমালায় বলা হয়েছে, ব্যবহারিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যুগোপযোগী ও অভিজ্ঞ মানবসম্পদ সৃষ্টি করা; পাঠ্যপুস্তকের জ্ঞানের সঙ্গে কর্মক্ষেত্রের অভিজ্ঞতার সমন্বয় ঘটানো এবং সরকারি দপ্তরের কাজের সঙ্গে পরিচিত হয়ে ভবিষ্যতে প্রজাতন্ত্রের সেবায় নিয়োজিত করতে উৎসাহ প্রদান করা।

তবে সামরিক বা বেসামরিক বা আধা সামরিক সব ধরনের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, নিরাপত্তা বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা, সরকার কর্তৃক ঘোষিত কি পয়েন্ট ইনস্টলেশন (কেপিআই) স্থাপনা বা প্রতিষ্ঠানগুলো এবং রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয়-এমন কোনো ক্ষেত্রে ইন্টার্নশিপ প্রদান করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *